Activities 2019

সোনালি দিনের স্বপ্ন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তিঃ প্রেক্ষাপট নির্বাচন ২০১৮

2-2-2019 তারিখে বাংলাদেশ হেরিটেজ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর এর সুফিয়া কামাল অডিটোরিয়ামে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত শাহ এ.এম.এস.কিবরিয়াও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম এর অকাল মৃত্যুতে স্মরণসভা এবং ২০১৮ জাতীয় নির্বাচনে গণতন্ত্রের উন্নয়ন ও সাফল্য নিয়ে ”সোনালি দিনের স্বপ্ন, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তিঃ প্রেক্ষাপট নির্বাচন ২০১৮“ শিরোনামে  একটি আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। উক্ত প্রোগ্রামে সভাপতিত্ব করেন প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাকালীন চেয়ারম্যান জনাব ওয়ালিউর রহমান। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব ফরহাদ হোসাইন,এমপি, মাননীয় প্রতিমন্ত্রী, জনপ্রসাশন মন্ত্রণালয়, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মিস মাহজাবিন খালেদ, এমপি, সদস্য, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি। গেস্ট অফ অনার হিসেবে  উপস্থিত ছিলেন  প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, বিটিএফও, উপাচার্য, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর, প্রফেসর ফরহাদ হোসেন, চেয়ারম্যান, ইংরেজি বিভাগ, মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, জনাব মাহবুবুর রশিদ, সাবেক সহকারী সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় মুজিবনগর সরকার, জনাব রফিকুল ইসলাম,  প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বাংলাদেশ হেরিটেজ ফাউন্ডেশন, মেজর জেনারেল এ কে এম মোহাম্মদ আলী শিকদার, কলামিস্ট অ্যান্ড সিকিউরিটি এনালিস্ট, সুবির কুশারী, সাধারণ সম্পাদক, ইন্দো-বাংলা মৈত্রী সমিতি, প্রফেসর ড. মান্নান চৌধুরী সহ বিভিন্ন শিক্ষক, গবেষক, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, মুক্তিযোদ্ধা এবং সমাজ সচেতন বরণ্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান অতিথি দুটি সেশনেই বক্তব্য উপস্থাপন করেন। স্মরণসভায় তিনি বলেন, শাহ এ.এম.এস.কিবরিয়া ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম কে হারিয়ে জাতির একটি অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। আশরাফুল ইসলাম সম্পর্কে তিনি বলেন,  তিনি থাকা অবস্থায় নির্বিঘ্নে গণতন্ত্র বজায় রয়েছে। তিনি ছিলেন সৎ, দেশপ্রেমিক ও মিতভাষী। শাহ এ.এম.এস কিবরিয়া সম্পর্কে বলেন, গ্রেনেড হামলায় নিহত হওয়ায় যে ক্ষতি হয়েছে তা পূরণের নয়। বিগত নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপি জোট যে অপকর্ম করেছে তার ফলশ্রুতিতে তাদের এ পরিণতি। বাংলার মানুষ তাদের বর্জন করেছে। অন্যদিকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ দেশের উন্নতিতে যে অবদান রেখেছে, সে কারণেই আওয়ামীলীগের এ নিরংকুশ বিজয়। বাংলার মানুষ আওয়ামীলীগের উপর আস্থা রাখতে পারছে। তিনি বলেন ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত দেশগুলোর একটি হবে। এখন সময় এসেছে সোনালী দিনের স্বপ্ন পূরণের।

জনাব ওয়ালিউর রহমান সভাপতির বক্তব্যে বলেন, মহাপুরুষদের নৈতিকতা বুঝার জন্য তাদের হাতে কিছু ক্ষমতা প্রধান করতে হয়। শাহ এ.এম.এস কিবরিয়া ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ছিলেন এমন দু’জন মানুষ যাদের হাতে ক্ষমতা থাকার পরও সেটির অপব্যবহার করেননি। নির্বাচনকে তিনি বলেন, এ নির্বাচনে একটি বিষয় পরিস্কার। আগামীর নির্বাচনে আর কোন স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি আর নির্বাচনে গুরুত্ব পাবে না। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে  মিস মাহজাবিন খালেদ  বলেন, শাহ এ.এম.এস কিবরিয়া ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম বাংলাদেশের উন্নয়নে যে অবদান রেখেছেন তা কখনো ভুলার নয়। এছাড়া বক্তব্য রাখেন, প্রফেসর ডক্টর নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহ, বিটিএফও, উপাচার্য, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, রংপুর, প্রফেসর ফরহাদ হোসেন ,চেয়ারম্যান, ইংরেজি বিভাগ, মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা; জনাব মাহবুবুর রশিদ, সাবেক সহকারী সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয় মুজিবনগর সরকার ; জনাব রফিকুল ইসলাম,  প্রতিষ্ঠাতা সদস্য, বাংলাদেশ হেরিটেজ ফাউন্ডেশন ; মেজর জেনারেল এ কে এম মোহাম্মদ আলী শিকদার, কলামিস্ট অ্যান্ড সিকিউরিটি এনালিস্ট ; জনাব সুবির কুশারী, সাধারণ সম্পাদক, ইন্দো বাংলা মৈত্রী সমিতি, প্রফেসর ড. মান্নান চৌধুরী সহ আরও অনেকে।

 

Copyright © 2014 BHF- All rights reserved. Powered by: i-make IT Solution

User Login